দুবাই ভ্রমণে ট্যুরিস্ট ভিসাধারীদের জন্য কড়াকড়ি আরোপ করেছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। এজন্য ভ্রমণের নিয়মকানুন ও নির্দেশনা যথাযথভাবে পালনের জন্য ভ্রমণ পিপাসুদের অনুরোধ করা হয়েছে।

ট্যুরিস্ট ভিসায় ভ্রমণকারীদের প্লেনে ওঠার আগে সঙ্গে ৩ হাজার দিরহাম (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৯৬ হাজার টাকা), বৈধ রিটার্ন টিকিট ও বাসস্থানের কাগজপত্রের প্রমাণ দেখানোর অনুরোধ করা হয়েছে।

দুবাই ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ‘খালিজ টাইমস’কে এই তথ্য জানিয়েছে পর্যটন সংস্থাগুলো।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, আমিরাতে প্রবেশের নির্দেশিকা কঠোরভাবে অনুসরণ করার বিষয়টি নিশ্চিত করছে কর্তৃপক্ষ। কিছু যাত্রী যারা এসব শর্ত পূরণে ব্যর্থ হয়েছে, তাঁরা বলেছেন- তাঁদের ভারতীয় বিমানবন্দরে আটকে দেওয়া হয়েছে। তাঁদের ফ্লাইটে উঠতে বাধা দেওয়া হয়। আরও কিছু যাত্রী দুবাইয়ের বিমানবন্দরে আটকা পড়েছে বলে জানা গেছে।

ট্র্যাভেল এজেন্টরা জানিয়েছে, এই নিয়ম দীর্ঘকাল ধরেই আছে। তবে এখন ভ্রমণকারীদের সুবিধার্থেই কর্তৃপক্ষ নজরদারি কঠোর করেছে।

রুহ ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমের লিবিন ভার্গিস বলেন, ‘দুবাই ভ্রমণকারীদের সুরক্ষার জন্য বিমানবন্দরেই যাছাই করা হচ্ছে। এর আগে ভিসার মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরও থাকার অনেক ঘটনা ঘটেছে। কর্তৃপক্ষের এই পদক্ষেপটি আমিরাতের পর্যটন খাতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।’

তাহিরা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলসের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও ফিরোজ মালিয়াক্কাল বলেন, ‘দুবাই ভ্রমণকারীদের অবশ্যই কমপক্ষে ছয় মাসের বৈধতা থাকা পাসপোর্টসহ একটি বৈধ ভিসা থাকতে হবে। যাত্রীকে অবশ্যই রিটার্ন টিকেট বহন করতে হবে। এগুলো আগেও চেক করা হয়েছে। তবে, এখন, দুবাইয়ে থাকার জন্য পর্যাপ্ত অর্থ সঙ্গে নেওয়া হচ্ছে কিনা– তা নিশ্চিত করার জন্য চেক করা হচ্ছে। এই অর্থের পরিমাণ হবে নগদ বা ক্রেডিট কার্ডে তিন হাজার দিরহামের সমতুল্য যেকোনও মুদ্রা। সেই সঙ্গে ভ্রমণকারীকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বাসস্থানের বৈধ ঠিকানার প্রমাণ দিতে হবে; এটা হয় আত্মীয় বা বন্ধুর বাড়ি বা হোটেল বুকিং- যেকোনও কিছু হতে পারে।’

আরও পড়ুন... জীবন নিয়ে উক্তি