দেশের প্রবাসী আয়ের বড় উৎস মধ্যপ্রাচ্য; যার মধ্যে বরাবরই বেশি অর্থ পাঠানো সৌদি আরবের রেমিটেন্সে এবার ভাটা পড়েছে। সৌদিকে টপকে গেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই)।

সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি ৪ দশমিক ৫৯ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স এসেছে আরব আমিরাত থেকে। এ তালিকার শীর্ষে থাকা সৌদি আরব থেকে এসেছে ২ দশমিক ৭৪ বিলিয়ন ডলার, যা আগের অর্থবছরের চেয়ে ২৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ কম।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ এ তথ্য বলছে, ব্যাংকিং চ্যানেলে আসা রেমিটেন্স উল্লেখযোগ্য হারে কমে যাওয়ায় শীর্ষ দেশ থেকে চতুর্থ অবস্থানে নেমে গেছে সৌদি আরব।

প্রবাসী আয় পাঠানোর তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটি থেকে সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে ২ দশমিক ৯৬ বিলিয়ন ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা।

রেমিটেন্স পাঠানোয় তৃতীয় অবস্থানে থাকা যুক্তরাজ্য থেকে এসেছে ২ দশমিক ৭৯ বিলিয়ন ডলার। আর পঞ্চম অবস্থানে থাকা মালয়েশিয়া থেকে প্রবাসীরা পাঠিয়েছেন ১ দশমিক ৬০ বিলিয়ন ডলার।

সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে শীর্ষ থেকে চতুর্থ অবস্থানে নেমে যাওয়া সৌদি আরব থেকে ২০২২-২৩ অর্থবছরে এসেছিল ৩ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার। এর আগের ২০২১-২২ অর্থবছরে রেমিটেন্সের প্রবাহ ছিল ৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার।

এ বিষয়ে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে সৌদি আরব থেকে রেমিটেন্স আসা কমেছে। যদিও শ্রমিক যাওয়া বেড়েছে সেখানে। তবে প্রত্যাশা অনুযায়ী রেমিটেন্স আসছে না।

সবশেষ জুনে মাসওয়ারী হিসেবে একক মাসে রেমিটেন্স আসে ২ দশমিক ৫৪ বিলিয়ন ডলার, যা ৪৭ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

প্রবাসী আয়ে জুনের উল্লম্ফনের উপর ভিত্তি করে সদ্য সমাপ্ত পুরো ২০২৩-২৪ অর্থবছরে রেমিটেন্স বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৩ দশমিক ৯১ বিলিয়ন ডলার।

আরও পড়ুন... জীবন নিয়ে উক্তি