‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ বা ‘ঘর থেকে কাজ’ এখন বিপুল জনপ্রিয়। বিশ্বের একাধিক বড় সংস্থা এই পদ্ধতিতে মুনাফা বাড়াচ্ছে। অন্য দিকে অফিস যাতায়াতের সময় বাঁচায় এবং পথের ধোঁয়াধুলো থেকে দূরে থেকে খুশি কর্মীরাও। সেই কাজে বিশেষ সুবিধে দেয় ডিজিটাল নোমাড ভিসা (Digital Nomad Visa)। জার্মানি, স্পেনের মতো একধিক দেশ ভারতীয়দের ডিজিটাল নোমাড ভিসা দিচ্ছে। প্রশ্ন হল, নোমাড ভিসা আসলে কী? কারা এই ভিসার সুবিধা পাবেন?

কোনও ব্যক্তির কাছে নোমাড ভিসা থাকলে বিশ্বের যে কোনও দেশে বসে অন্য দেশের সংস্থায় কাজ করা সম্ভব। অর্থাৎ উচ্চশিক্ষা কিংবা চাকরি ছাড়াও কোনও দেশে দীর্ঘদিন বসবাস করা যেতে পারে। সেই দেশে বাস করলেও সেখানে কাজ করতে হবে না আপনাকে। তবে কিছু শর্ত মানতেই হবে। লেখক, সফটওয়্যার প্রফেশনাল, গ্রাফিক ডিজাইনার, ভার্চুয়াল সহকারী ইত্যাদি পেশার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের জন্য ডিজিটাল নোমাড বা যাযাবর ভিসা বিশেষভাবে সুবিধাজনক।

সাম্প্রতিককালে জার্মানি, গ্রিস, ইন্দোনেশিয়া, মরিশাস, পর্তুগাল, বাহামাস, স্পেন, সেশেলস, কোস্টারিকা, ভারতীয়দের ডিজিটাল নোমাড ভিসা দিতে রাজি হয়েছে। জার্মানি জানিয়েছে, মুক্ত পেশাদার হওয়ার পাশাপাশি কমপক্ষে এক বছরের আর্থিক সঙ্গতি থাকতে হবে আবেদনকারীর। ভারতীয় মুদ্রায় ৬, ৭০০ টাকার বিনিময় মিলবে জার্মানির ডিজিটাল নোমাড ভিসা। বাকি দেশগুলিতেও ফ্রিলান্স পেশা এবং ন্যূনতম আর্থিক সঙ্গতির প্রমাণ দেখাতে পারলেই পাওয়া যাবে অভিনব ভিসা। খরচ কোথাও কিছুটা কম, কোথাও বা সামান্য বেশি।

আরও পড়ুন... জীবন নিয়ে উক্তি